আপনার হুরুব আছে কিনা চেক করুন

চট্টগ্রামে ই-পাসপোর্ট সেবা নিচ্ছে হাজারো প্রবাসী

 



ই-পাসপোর্ট বানাতে প্রবাসীদের ভিড় লেগেছে চট্টগ্রাম পাসপোর্ট অফিসে।

দীর্ঘদিন লকডাউনের পর পাসপোর্ট কার্যক্রম চালু হওয়ায় প্রবাসীসহ অন্যান্য পাসপোর্ট প্রত্যাশীদের ভিড় লেগে যায় সেখানে।

 তবে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, প্রবাসীদের জন্য সর্বোচ্চ সুযোগ সুবিধা দিতে প্রস্তুত রয়েছেন তারা।



বর্তমানে আর প্রিন্ট হচ্ছেনা এনালগ বা মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি)। এখন থেকে সবাইকে ই পাসপোর্ট করতে হচ্ছে। 


আর এই ই পাসপোর্ট বানাতে অন্যান্যদের পাশাপাশি প্রবাসীরাও ভিড় করছেন চট্টগ্রাম পাসপোর্ট অফিসে।



তবে দেশের অন্যান্য পাসপোর্ট অফিসের তুলনায় চট্টগ্রামের পাসপোর্ট অফিসের চিত্র ছিল ভিন্ন রকম। টানা ১৯ দিন লকডাউন শেষে হাজার হাজার আবেদনকারীর আবেদন জমা নিতে আগে থেকেই নানা রকম পূর্ব প্রস্তুতি নিয়েছিলেন চট্টগ্রাম পাসপোর্ট অফিসের পরিচালক আবু সায়েদ।



মহামারী করোনা ভাইরাসের বিষয়টির দিকে খেয়াল রেখে প্রবেশ পথ থেকে শুরু করে পাসপোর্ট কার্যালয়ে ছিল নানা সতর্কতা। স্বাস্থ্যবিধির কথা মাথায় রেখে প্রবেশ পথে শরীরের তাপমাত্রা মাপা, ‘জীবাণুনাশক বুথ’, হাত ধোয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ও সামাজিক দূরত্বের জন্য কর্তৃপক্ষের ছিল কঠিন তৎপরতা।




যার ফলে পৃথক পৃথক লাইনে লাইনে দাঁড়িয়ে সেবা নিচ্ছেন প্রবাসীসহ অন্যান্য পাসপোর্ট প্রত্যাশীরা। অন্য দিকে এবার পাসপোর্ট অফিসের বাহিরে ছিলোনা কোন দালাল চক্রের দৌরাত্ম্য। পূর্ব সময়ে যা অনেক বেশি দেখা যেত।


এদিকে, নতুন ই পাসপোর্ট আবেদনকারীরা ব্যংকের মাধ্যমে টাকা জমা দেয়ার পর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পাসপোর্ট হাতে পাচ্ছেন। এমনকি ১৫ দিনেও পাসপোর্ট পাচ্ছেন অনেক আবেদনকারীরা, যদি না তাদের তথ্যে কোন সমস্যা থেকে থাকে, জানান পরিচালক আবু সায়েদ ।


image source dakghar24

কেমন তথ্য জটিলতা এমন প্রশ্নের জবাবে আবু সায়েদ আরো বলেন , অনেকের দেখা যায় বাবার নামের সাথে আইডির নাম গড়মিল । আবার দেখা যায় আবেদনকৃত ফরমে দেয়া নামসহ নানা তথ্যের অমিল, এমনকি আগের পাসপোর্ট সম্পর্কে অনেকে গোপনীয়তা রক্ষা করতে চান, সেক্ষেত্রে জবাবদিহিতার মধ্যে থেকে যায় সে পাসপোর্ট ।


পরিচালক আবু সায়েদ বিশেষ করে প্রবাসীদের জন্য বলেন, সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা প্রবাসীদের ভোগান্তি কমিয়ে নানা রকম পদক্ষেপ হাতে নিয়েছি এবং কাজ করছি। প্রবাসীরা আরো সহজে কীভাবে আবেদন করবে সে বিষয়ে চলছে অনলাইনে আমাদের নানা কার্যক্রম , লিফলেট বিতরণ । নতুন করে ভিডিও বানিয়েও খুব সহজে বোঝানোর পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের হাতে ।


এসময় তিনি আরো বলেন, একজন প্রবাসী যখন দেশে আসেন তখন খুব কম সময়ের জন্য কিন্তু আসেন । আর সে সময়ে পাসপোর্ট নিয়ে তাকে বাড়তি ভোগান্তিতে সে পরুক সেটা অন্তত চট্টগ্রামের পাসপোর্ট অফিসে আমরা হতে দিব না । তাদের ছোট খাটো কোন সমস্যা থাকলে আমরা সেটা চেষ্টা করি সমাধান করে জমা নিতে এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তাদের পাসপোর্ট ডেলিভারি দিতে।




এছাড়াও রোহিঙ্গা  ইস্যুতে তিনি বলেন , এমন অনেক চক্র তৎপর রয়েছে। অতীতে এমন অনেককে আমরা গ্রেফতার করিয়েছি বর্তমানেও চট্টগ্রাম পাসপোর্ট অফিস এই স্পর্শকাতর বিষয়গুলো নিয়ে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।


এদিকে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে সুন্দর ভাবে পাসপোর্ট জমা দিতে পেরে আনন্দিত হতে দেখা গেছে পাসপোর্ট আবেদনকারীদের।

source news dakghar24

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন
আপনার হুরুব আছে কিনা চেক করুন

نموذج الاتصال